ঢাকা ১০:১৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
রংপুর মেট্রোপলিটন গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি)’র পৃথক অভিযানে ১১ বোতল ফেন্সিডিল ও ২ কেজি গাঁজাসহ ৩ মাদককারবারী আটক দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর রংপুর নগরীতে সিটি সার্ভিস বাসের উদ্বোধন। রংপুর সিটি কর্পোরেশনে চলমান স্মার্ট সিটি সল্যুশন ডেমোনেস্ট্রেশন প্রকল্পের মধ্যবর্তী মূল্যায়ন সভা অনুষ্ঠিত শীতের মাঠে দুস্থ ও শীতার্ত মানুষের পাশে পরাজিত প্রার্থী আনিছুর রহমান আনিছ তিন কোটি পঁচাত্তর লক্ষ ছিয়াশি হাজার ছয়ছত ব্যায়ে নগরীর ১১ ও ১২নং ওয়ার্ডে রাস্তা উন্নয়নকরণ কাজ শুরু আগামীকাল রংপুরে আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনোনয়ন ফিরে পেলেন উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করা স্বতন্ত্র প্রার্থী জাকির রংপুরের ৬টি আসন থেকে স্বতন্ত্রসহ ৪৯ জন প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল বেরোবিতে শিক্ষাবৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের মাঝে চেক হস্তান্তর

মিঠাপুকুরে গৃহবধূ ধর্ষিত, হাতেনাতে ধরার পর সন্ত্রাসী কায়দায় হামলা চালিয়ে ধর্ষককে ছিনিয়ে নিল লোকজন

মিঠাপুকুর (রংপুর) প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ১১:১০:১৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১১১ বার পড়া হয়েছে

রংপুরের মিঠাপুকুরে এক গৃহবধূ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। এসময় ধর্ষককে হাতেনাতে আটক করে একটি ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখেন স্থানীয়রা। পরে ধর্ষকের লোকজন সন্ত্রাসী কায়দায় বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর চালিয়ে ধর্ষককে ছিনিয়ে নিয়ে যান। এ ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। তবে, আসামীরা এখনও গ্রেফতার হয়নি।

ভুক্তভোগির পরিবার ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার লতিবপুর ইউনিয়নের একটিনিঝাল গ্রামের দরিদ্র কৃষক হামিদুল তার বন্ধু সাদেকুলসহ গত বুধবার রাতে পাশের আখিরা নদীতে মাছ ধরতে যান। হামিদুলের স্ত্রী (৩০) বাড়িতে ঘরে শুয়ে পড়েন। এ সময় মাছ ধরা বাদ দিয়ে কৌশলে স্বামীকে রেখে বন্ধু সাদেকুল ইসলাম ওই গৃহবধূর ঘরে ঢুকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এ সময় তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে গিয়ে ধর্ষককে ঘরে আটক করে রাখে। খবর পেয়ে পরদিন বৃহস্পতিবার সকাল ১০ ধর্ষকের লোকজন দেশিয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর চালিয়ে ধর্ষককে ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় ধর্ষিতার স্বামী বৃহস্পতিবার রাতে ধর্ষক ও হামলা-ভাংচুরে নেতৃত্ব দেওয়া সাইদুল ইসলামসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। ওই গৃহবধূর স্বামী হামিদুল বলেন, ‘ সাদেকুল ইসলাম আমাকে রেখে ওষুধ খাওয়ার কথা বলে বাড়িতে যায়। কিন্তু তার বাড়িতে না গিয়ে আমার বাড়িতে যায়। সুযোগ বুঝে ঘরে ঢুকে স্ত্রীর মুখ চেপে ধরে ভয়ভীতি দেখিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। তাকে খুঁজতে বাড়িতে গিয়ে আমার স্ত্রীর সাথে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পাাই। স্ত্রীর চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এসে ধর্ষক সাদেকুলকে ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখে।’ পরদিন বৃহস্পতিবার সকালে তাকে সন্ত্রাসী কায়দায় বাড়িঘর ভাংচুর চালিয়ে ছিনিয়ে করে নিয়ে যান সাইদুল ইসলাম ও তার সহযোগীরা। মিঠাপুকুর থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘ধর্ষিতা গৃহবধূকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে। আসামীরা পলাতক থাকায় গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

মিঠাপুকুরে গৃহবধূ ধর্ষিত, হাতেনাতে ধরার পর সন্ত্রাসী কায়দায় হামলা চালিয়ে ধর্ষককে ছিনিয়ে নিল লোকজন

আপডেট সময় : ১১:১০:১৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ সেপ্টেম্বর ২০২৩

রংপুরের মিঠাপুকুরে এক গৃহবধূ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। এসময় ধর্ষককে হাতেনাতে আটক করে একটি ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখেন স্থানীয়রা। পরে ধর্ষকের লোকজন সন্ত্রাসী কায়দায় বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর চালিয়ে ধর্ষককে ছিনিয়ে নিয়ে যান। এ ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। তবে, আসামীরা এখনও গ্রেফতার হয়নি।

ভুক্তভোগির পরিবার ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার লতিবপুর ইউনিয়নের একটিনিঝাল গ্রামের দরিদ্র কৃষক হামিদুল তার বন্ধু সাদেকুলসহ গত বুধবার রাতে পাশের আখিরা নদীতে মাছ ধরতে যান। হামিদুলের স্ত্রী (৩০) বাড়িতে ঘরে শুয়ে পড়েন। এ সময় মাছ ধরা বাদ দিয়ে কৌশলে স্বামীকে রেখে বন্ধু সাদেকুল ইসলাম ওই গৃহবধূর ঘরে ঢুকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এ সময় তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে গিয়ে ধর্ষককে ঘরে আটক করে রাখে। খবর পেয়ে পরদিন বৃহস্পতিবার সকাল ১০ ধর্ষকের লোকজন দেশিয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর চালিয়ে ধর্ষককে ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় ধর্ষিতার স্বামী বৃহস্পতিবার রাতে ধর্ষক ও হামলা-ভাংচুরে নেতৃত্ব দেওয়া সাইদুল ইসলামসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। ওই গৃহবধূর স্বামী হামিদুল বলেন, ‘ সাদেকুল ইসলাম আমাকে রেখে ওষুধ খাওয়ার কথা বলে বাড়িতে যায়। কিন্তু তার বাড়িতে না গিয়ে আমার বাড়িতে যায়। সুযোগ বুঝে ঘরে ঢুকে স্ত্রীর মুখ চেপে ধরে ভয়ভীতি দেখিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। তাকে খুঁজতে বাড়িতে গিয়ে আমার স্ত্রীর সাথে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পাাই। স্ত্রীর চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এসে ধর্ষক সাদেকুলকে ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখে।’ পরদিন বৃহস্পতিবার সকালে তাকে সন্ত্রাসী কায়দায় বাড়িঘর ভাংচুর চালিয়ে ছিনিয়ে করে নিয়ে যান সাইদুল ইসলাম ও তার সহযোগীরা। মিঠাপুকুর থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘ধর্ষিতা গৃহবধূকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে। আসামীরা পলাতক থাকায় গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি।