ঢাকা ০৯:২৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
রংপুর মেট্রোপলিটন গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি)’র পৃথক অভিযানে ১১ বোতল ফেন্সিডিল ও ২ কেজি গাঁজাসহ ৩ মাদককারবারী আটক দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর রংপুর নগরীতে সিটি সার্ভিস বাসের উদ্বোধন। রংপুর সিটি কর্পোরেশনে চলমান স্মার্ট সিটি সল্যুশন ডেমোনেস্ট্রেশন প্রকল্পের মধ্যবর্তী মূল্যায়ন সভা অনুষ্ঠিত শীতের মাঠে দুস্থ ও শীতার্ত মানুষের পাশে পরাজিত প্রার্থী আনিছুর রহমান আনিছ তিন কোটি পঁচাত্তর লক্ষ ছিয়াশি হাজার ছয়ছত ব্যায়ে নগরীর ১১ ও ১২নং ওয়ার্ডে রাস্তা উন্নয়নকরণ কাজ শুরু আগামীকাল রংপুরে আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনোনয়ন ফিরে পেলেন উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করা স্বতন্ত্র প্রার্থী জাকির রংপুরের ৬টি আসন থেকে স্বতন্ত্রসহ ৪৯ জন প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল বেরোবিতে শিক্ষাবৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের মাঝে চেক হস্তান্তর

লালমনিরহাটের কালিগঞ্জে জীবিত পুঁতে রেখে হত্যার চাঞ্চল্যকর ঘটনায় আসামী গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১৩, রংপুর।

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০৪:১৮:৩৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৭ অগাস্ট ২০২৩ ১৮৫ বার পড়া হয়েছে

র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) প্রতিষ্ঠাকালীন থেকেই দেশের সার্বিক আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সমুন্নত রাখার লক্ষ্যে সব ধরণের অপরাধীকে আইনের আওতায় নিয়ে আসার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভ‚মিকা পালন করে আসছে। র‌্যাব নিয়মিত অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী, সংঘবন্ধ অপরাধী, মাদক, ছিনতাইকারী, ডাকাতসহ নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠনের বিরুদ্ধে ব্যাপক অভিযান চালিয়ে আসছে।
গত ১৪ জুলাই ২০২২ তারিখ ভিকটিম মোঃ আলমগীর হোসেন (৪৫)’কে তার সৎভাই কোমল পানীয় ও জুসের সাথে চেতনানাশক সেবন করে হত্যা করে। এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে এলাকাবাসীর সামনে। উক্ত ঘটনাটি জাতীয় ও স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমসমূহে প্রচারিত হলে এলাকায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। কিন্তু ইতিমধ্যে খুনিরা আত্মগোপন করে। এলাকাবাসীর মাধ্যমে জানা যায় যে, ভিকটিম মোঃ আলমগীর হোসেন (৪৫) এর মায়ের জমি ভোগ করে আসছিল তার সৎভাই খেলান উদ্দিন ও আবদুস সাত্তার। এ নিয়ে তাদের মধ্যে বিরোধ চলছিল। এক বছর আগে তার সৎভাইদের সঙ্গে বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হয়েছিল ভিকটিম মোঃ আলমগীর হোসেন (৪৫)। বিষয়টির কোন ক‚লকিনারা পাচ্ছিল না পুলিশ। অবশেষে এক ব্যক্তির স্বীকারোক্তিতে খুলল ঘটনার জট। ১৩ জুলাই ২০২২ তারিখ আদিতমারী উপজেলার পশ্চিম রামদেব গ্রামে তার সৎভাই আবদুস সাত্তারের ভায়রা আবদুল আজিজ ওরফে রাশেদুল ড্রাইভার ও ঐ গ্রামের বাসিন্দা আশরাফ আলী এবং সেকেন্দার আলীর সহযোগিতায় একটি বাড়িতে আলমগীর হোসেন (৪৫)কে ডেকে কৌশলে কোমল পানীয় ও জুসের সাথে চেতনানাশক খাওয়ান। ভিকটিম মোঃ আলমগীর হোসেন (৪৫) জ্ঞান হারিয়ে ফেললে জীবিত অবস্থায় বাঁশঝাড়ের মধ্যে পুঁতে রাখে।
ভিকটিমের পরিবারের পক্ষ থেকে বাদী হয়ে ১৪ জুলাই ২০২২ তাখি কালিগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়েছিল। এর মধ্যে ভিকটিমের সৎভাই খেলান উদ্দিন ও আবদুস সাত্তার মারা গেছে। গত ১০/০৭/২০২৩ ইং তারিখে ভিকটিমের ভাই সাদ্দাম হোসেন লালমনিরহাট জেলার কালিগঞ্জ থানায় এজাহার দায়ের করেন, যার মামলা নং-০৭/২১১, তারিখ-১০/০৭/২০২৩, ধারা-৩৬৪/১১৪ পেনাল কোড ।
এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-১৩, ব্যাটালিয়ন সদর উক্ত চাঞ্চল্যকর ঘটনার বিষয়ে গোয়েন্দা নজরদারী শুরু করে। এক পর্যায়ে তথ্য উপাত্ত পর্যালোচনা করে এবং গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত ১৫/০৮/২০২৩ ইং তারিখ গাজীপুর জেলার টুঙ্গী থানা এলাকায় র‌্যাব-১, সিপিসি-১, উত্তরা, ঢাকা এর সাথে যৌথ অভিযান পরিচালনা করে চাঞ্চল্যকর ক্লুলেস হত্যা মামলার আসামী মোঃ আদম আলী (৫৮), পিতা-মৃত জহর উদ্দিন, সাং-রুদ্রেশ্বর, থানা-কালিগঞ্জ, জেলা-লালমনিরহাট’কে গ্রেফতার করে।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে, ধৃত আসামী অন্যান্য আসামীদের সহায়তায় ঐ দিন পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ভিকটিমকে কোমল পানীয় ও জুসের সাথে চেতনানাশক সেবন করিয়ে জীবিত অবস্থায় বাঁশঝাড়ের মধ্যে মাটিতে পুঁতে রেখে হত্যা করে বলে স্বীকার করে। অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতার জন্য র‌্যাব-১৩ গোয়েন্দা নজরদারি চালিয়ে যাচ্ছে। ধৃত আসামীকে থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

লালমনিরহাটের কালিগঞ্জে জীবিত পুঁতে রেখে হত্যার চাঞ্চল্যকর ঘটনায় আসামী গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১৩, রংপুর।

আপডেট সময় : ০৪:১৮:৩৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৭ অগাস্ট ২০২৩

র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) প্রতিষ্ঠাকালীন থেকেই দেশের সার্বিক আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সমুন্নত রাখার লক্ষ্যে সব ধরণের অপরাধীকে আইনের আওতায় নিয়ে আসার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভ‚মিকা পালন করে আসছে। র‌্যাব নিয়মিত অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী, সংঘবন্ধ অপরাধী, মাদক, ছিনতাইকারী, ডাকাতসহ নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠনের বিরুদ্ধে ব্যাপক অভিযান চালিয়ে আসছে।
গত ১৪ জুলাই ২০২২ তারিখ ভিকটিম মোঃ আলমগীর হোসেন (৪৫)’কে তার সৎভাই কোমল পানীয় ও জুসের সাথে চেতনানাশক সেবন করে হত্যা করে। এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে এলাকাবাসীর সামনে। উক্ত ঘটনাটি জাতীয় ও স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমসমূহে প্রচারিত হলে এলাকায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। কিন্তু ইতিমধ্যে খুনিরা আত্মগোপন করে। এলাকাবাসীর মাধ্যমে জানা যায় যে, ভিকটিম মোঃ আলমগীর হোসেন (৪৫) এর মায়ের জমি ভোগ করে আসছিল তার সৎভাই খেলান উদ্দিন ও আবদুস সাত্তার। এ নিয়ে তাদের মধ্যে বিরোধ চলছিল। এক বছর আগে তার সৎভাইদের সঙ্গে বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হয়েছিল ভিকটিম মোঃ আলমগীর হোসেন (৪৫)। বিষয়টির কোন ক‚লকিনারা পাচ্ছিল না পুলিশ। অবশেষে এক ব্যক্তির স্বীকারোক্তিতে খুলল ঘটনার জট। ১৩ জুলাই ২০২২ তারিখ আদিতমারী উপজেলার পশ্চিম রামদেব গ্রামে তার সৎভাই আবদুস সাত্তারের ভায়রা আবদুল আজিজ ওরফে রাশেদুল ড্রাইভার ও ঐ গ্রামের বাসিন্দা আশরাফ আলী এবং সেকেন্দার আলীর সহযোগিতায় একটি বাড়িতে আলমগীর হোসেন (৪৫)কে ডেকে কৌশলে কোমল পানীয় ও জুসের সাথে চেতনানাশক খাওয়ান। ভিকটিম মোঃ আলমগীর হোসেন (৪৫) জ্ঞান হারিয়ে ফেললে জীবিত অবস্থায় বাঁশঝাড়ের মধ্যে পুঁতে রাখে।
ভিকটিমের পরিবারের পক্ষ থেকে বাদী হয়ে ১৪ জুলাই ২০২২ তাখি কালিগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়েছিল। এর মধ্যে ভিকটিমের সৎভাই খেলান উদ্দিন ও আবদুস সাত্তার মারা গেছে। গত ১০/০৭/২০২৩ ইং তারিখে ভিকটিমের ভাই সাদ্দাম হোসেন লালমনিরহাট জেলার কালিগঞ্জ থানায় এজাহার দায়ের করেন, যার মামলা নং-০৭/২১১, তারিখ-১০/০৭/২০২৩, ধারা-৩৬৪/১১৪ পেনাল কোড ।
এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-১৩, ব্যাটালিয়ন সদর উক্ত চাঞ্চল্যকর ঘটনার বিষয়ে গোয়েন্দা নজরদারী শুরু করে। এক পর্যায়ে তথ্য উপাত্ত পর্যালোচনা করে এবং গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত ১৫/০৮/২০২৩ ইং তারিখ গাজীপুর জেলার টুঙ্গী থানা এলাকায় র‌্যাব-১, সিপিসি-১, উত্তরা, ঢাকা এর সাথে যৌথ অভিযান পরিচালনা করে চাঞ্চল্যকর ক্লুলেস হত্যা মামলার আসামী মোঃ আদম আলী (৫৮), পিতা-মৃত জহর উদ্দিন, সাং-রুদ্রেশ্বর, থানা-কালিগঞ্জ, জেলা-লালমনিরহাট’কে গ্রেফতার করে।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে, ধৃত আসামী অন্যান্য আসামীদের সহায়তায় ঐ দিন পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ভিকটিমকে কোমল পানীয় ও জুসের সাথে চেতনানাশক সেবন করিয়ে জীবিত অবস্থায় বাঁশঝাড়ের মধ্যে মাটিতে পুঁতে রেখে হত্যা করে বলে স্বীকার করে। অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতার জন্য র‌্যাব-১৩ গোয়েন্দা নজরদারি চালিয়ে যাচ্ছে। ধৃত আসামীকে থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।